জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করার নিয়ম –

জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করার নিয়ম : বিভিন্ন সময় আমরা একের অধিক জন্ম নিবন্ধন আবেদন করে ফেলি।

জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করার নিয়ম

অথবা এমন অনেক মানুষ আছেন, যাদের একাধিক ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন আছে। তো আপনিও যদি এমন ভুল করে থাকেন।

তাহলে আপনি মাত্র কয়েকটা ধাপ অনুসরন করে। আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করতে পারবেন।

তবে এই জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার জন্য আপনাকে কি কি নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। এবার আমি আপনাকে সেই নিয়ম গুলো ধাপে ধাপে দেখিয়ে দিবো।

তো চলুন এবার জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করার নিয়ম গুলো জেনে নেয়া যাক।

একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল

আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা অনেক আগে হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন এর সময়। নিজের ভুলবশত একাধিকবার জন্ম নিবন্ধন করেছেন।

আবার আপনি এমন অনেক মানুষ খুজে পাবেন। যারা নিজের জন্ম নিবন্ধন সনদ খুজে না পাওয়ার কারনে কিংবা হারিয়ে ফেলার কারনে।

পুনরায় আবার জন্ম নিবন্ধন করেছেন। তো যখন আপনি এই ধরনের কাজ করবেন। তখন কিন্তুু আপনার জন্ম নিবন্ধন ডুপ্লিকেট হয়ে যাবে।

আর যেহুতু আগের দিন গুলোতে জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল ছিলনা। সেহুতু এই ধরনের ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন শনাক্ত করাও বেশ কঠিন একটা কাজ ছিলো।

উন্নত প্রযুক্তির এই যুগে আপনি যদি একাধিকবার আপনার জন্ম নিবন্ধন করে থাকেন। তাহলে খুব সহজেই তা শনাক্ত করা যাবে।

আর যদি কোনো কারনে আপনিও একাধিক বার জন্ম নিবন্ধন করে থাকেন। তাহলে অবশ্যই আপনাকে একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে হবে।

তবে এই ধরনের ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার কাজটি খুব বেশি কঠিন নয়। বরং আপনি এখন নিজের ঘরে বসে এই ধরনের একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন।

আর এই কাজটি করার জন্য আপনাকে কি কি নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। এবার আম আপনাকে স্টেপ বাই স্টেপ দেখিয়ে দিবো। যাতে করে আপনি কোনো ঝামেলা ছাড়াই আপনর একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারেন।

জন্ম নিবন্ধন বাতিল আইন

জন্ম নিবন্ধন বাতিল আইন
জন্ম নিবন্ধন বাতিল আইন

দেখুন, আমরা অনেকে নিজের ভুলের কারনে একাধিক জন্ম নিবন্ধন করলেও। বর্তমান সময়ে সেই ধরনের ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার আইন জারি করা হয়েছে।

এবং সেই জন্ম নিবন্ধন এর বিধীমালা ২০১৮ এর ধারা ১৫ অনুযায়ী। একজন ব্যক্তি যদি একাধিক বার তার জন্ম নিবন্ধন করে থাকে।

তাহলে পরবর্তী সময়ে সেই ব্যক্তি তার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন। তবে যখন একজন ব্যক্তি তার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করবে। তখন সেই ব্যক্তিকে অবশ্যই নির্ধারিত ফি সমেত জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার আবেদন করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে কি কি লাগে?

উপরের আলোচনা থেকে আমরা জানতে পারলাম, নির্ধারিত ফি প্রদান করে। আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন।

এবং উক্ত কাজটি করার জন্য আইনের ধারা রয়েছে। তো যখন আপনি জন্ম নিবন্ধন বাতিল করবেন। তখন আপনার নিকট বেশ কিছু জিনিস থাকতে হবে।

আর সেই প্রয়োজনীয় বিষয় গুলোর তালিকা নিচে দেওয়া হলো।

  1. আপনি যে জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে চান। সেই জন্ম নিবন্ধন এর মধ্যে থাকা ১৭ ডিজিট এর নম্বর থাকতে হবে।
  2. সেই সাথে উক্ত জন্ম সনদ এর মধ্যে উল্লেখ থাকা জন্ম তারিখ আপনার নিকট থাকতে হবে।
  3. এছাড়াও জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার জন্য নির্ধারিত ফিস প্রদান করতে হবে। কারন, জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে প্রায় ১০০ টাকা ফি হিসেবে দিতে হয়।
  4. সবশেষে আপনার যে একাধিক জন্ম নিবন্ধন আছে। সেই নিবন্ধন এর এন্ট্রি প্রমান করতে হবে।

তো আপনার নিকট যখন এই সকল তথ্য ও ডকুমেন্টস গুলো থাকবে। তখন আপনি খুব সহেজই আপনার একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

এবং আপনি আপনার একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন। 

জন্ম নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করার নিয়ম

দেখুন, বর্তমান সময়ে জন্ম নিবন্ধন এর যাবতীয় কাজ গুলো ডিজিটাল করা হয়েছে। আর সেই সুবাদে আপনি এখন চাইলেই জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ গুলো অনলাইনে সম্পন্ন করতে পারবেন।

আর যদি আপনি একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে চান। তাহলে এই বাতিল করার আবেদন টি আপনি অনলাইন থেকে করতে পারবেন।

তবে এখানে একটা কথা বলে রাখা উচিত। সেটি হলো, আপনি যখন অনলাইনে আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করবেন।

তার পরবর্তী ১৫ কার্যদিবস এর মধ্যে সেই আবেদন কপি টি নিয়ে। আপনার গ্রামের ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা কার্যালয় কিংবা কাউন্সিলর অফিসে আপনার আবেদন কপি টি জমা দিতে হবে।

আর তারপর আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল এর কার্যক্রম শুরু হবে।

জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন ফরম পূরণ করার নিয়ম

আলোচনার শুরুতেই আমি আপনাকে একটা কথা বলেছি। সেটি হলো, আপনি মাএ কয়েকটা স্টেপ ফলো করে জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন।

তবে আপনি যখন নিজের ঘরে বসে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার জন্য আবেদন করবেন।

তখন আপনাকে যেসকল নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। এবার আমি সেই নিয়ম ‍গুলো খুব সহজ ভাবে তুলে ধরবো।

স্টেপ-১ঃ জন্ম নিবন্ধন এন্ট্রি সার্চ করুন

আপনি যখন অনলাইনে আপনার একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করবেন। তখন অবশ্যই প্রথমে আপনাকে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর এন্ট্রি সার্চ করে বের করতে হবে।

আর এই কাজটি করার জন্য আপনারকে বাংলাদেশ জন্ম ও মৃত্যু সনদ এর মূল ওয়েব সাইটে যেতে হবে। অথবা আপনি চাইলে এখানে ক্লিক করে, সরাসরি উক্ত ওয়েবাসইটে প্রবেশ করতে পারবেন।

তো যখন আপনি জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার জন্য উপরের লিংকে ক্লিক করবেন। তখন প্রথমে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর মধ্যে থাকা ১৭ ডিজিট এর নম্বর প্রবেশ করবেন।

এরপর তার ঠিক নিচে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন এর তারিখ টি প্রদান করবেন। এবং তারপর আপনাকে অনুসন্ধান এর মধ্যে ক্লিক করতে হবে।

আর যখন আপনি অনুসন্ধান এর মধ্যে ক্লিক করবেন। তখন আপনি অনলাইনে আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ এর মধ্যে থাকা যাবতীয় তথ্য গুলো দেখতে পারবেন।

তো এখন আপনাকে সবার নিচে ডান পাশে থাকা “নির্বাচন করুন” নামক বাটন এর মধে ক্লিক করবেন।

স্টেপ-২ঃ আপনার নিবন্ধন কার্যালয় নির্বাচন করুন

তো উপরের কাজ গুলো করার পরে আপনাকে আপনার নিবন্ধন কার্যালয় নির্বাচন করতে হবে। অর্থ্যাৎ, আপনি আসলে কোন নিবন্ধন কার্যালয় থেকে আপনার জন্ম নিবন্ধন করেছেন।

সেটি আপনাকে নির্নয় করে দিতে হবে। আর এখানে ঠিকানা গুলো দেয়ার সময় লক্ষ্য রাখবেন। যেন উক্ত স্থানে দেওয়া ঠিকানায় কোনো ধরনের ভুল না থাকে।

যেমন, সবার প্রথমে আপনি আপনার দেশ, বাংলাদেশ সিলেক্ট করবেন। এরপর আপনার নিবন্ধন কার্যালয় অনুযায়ী, বিভাগ, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন, ইউনিয়ন পরিষদ ইত্যাদি তথ্য গুলো নির্ভুল ভাবে প্রদান করবেন।

আর এই প্রয়োজনীয় তথ্য গুলো দেয়ার পরে “পরবর্তী” নামক বাটন এর মধ্যে ক্লিক করবেন।

স্টেপ-৩ঃ জন্ম নিবন্ধন বাতিল এর কারন ও তথ্য দিন

এটি হলো, অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার সর্বশেষে ধাপ। আর এখানে আপনি আসলে কি কারনে আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে চাচ্ছেন।

সেটি আপনাকে পরিস্কার ভাবে উল্লেখ করে দিতে হবে। আর উক্ত অপশন এর মধ্যে আপনি “ডুপ্লিকেট নিবন্ধন সনদ” এই কারনটি দেখাবে।

কারন, ডুপ্লিকেট নিবন্ধন সনদ এর কারনে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে চান।

এর পাশাপাশি আপনাকে আরো কিছু তথ্য দিতে হবে। যেমন, আপনি কি আপনার নিজের জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে চান নাকি আপনি আপনার সন্তানের নিবন্ধন বাতিল করতে চান, সেটা উল্লেখ করতে হবে।

সেই সাথে এখানে আপনার একটি যোগাযোগ নম্বর প্রদান করবেন। যেন, পরবর্তী তে উক্ত নম্বরে ফোন করে জন্ম নিবন্ধন কার্যালয় থেকে আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

আর এই যাবতীয় তথ্য গুলো দেওয়া হলে, আপনি “Submit” বাটন এর মধ্যে ক্লিক করবেন। কারন, আপনি অনলাইনে সফল ভাবে আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করতে পেরেছেন।

জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করার পর করনীয় কি? 

দেখুন, আপনি অনলাইনে আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার আবেদন করে বসে থাকলে হবেনা। বরং এর পরে আপনাকে আরো বেশ কিছু কাজ করতে হবে।

যেমন, আপনার জন্ম নিবন্ধন এর অনলাইন আবেদন কপিটি প্রিন্ট করে নিতে হবে। নতুবা আপনি এই অনলাইন আবেদন এর কপিটি পিডিএফ ফাইল হিসেবে নিজের কম্পিউটার অথবা মোবাইলে সেভ করে রেখে দিবেন।

সেই সাথে অনলাইনে আবেদন সম্পন্ন হওয়ার পরে আপনাকে একটি অ্যাপ্লিকেশন আইডি দেওয়া হবে। যেগুলো আপনি আপনার কাছে সংরক্ষন করে রেখে দিবেন।

আর সবশেষে এই অনলাইন আবেদন কপি টি নিয়ে আপনি আপনার গ্রামের ইউনিয়ন পরিষদ কিংবা পৌরসভা কার্যালয়ে গিয়ে জমা দিবেন।

তাহলে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার সকল কাজ গুলো সম্পন্ন করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন বাতিল ফি কত টাকা? 

আমি শুরুতেই বলেছি যে, আপনি যখন আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করবেন। তখন অবশ্যই আপনাকে জন্ম নিবন্ধন বাতিলের জন্য নির্ধারিত ফি প্রদান করতে হবে।

আর জন্ম নিবন্ধন এর বিধীমালা অনুযায়ী, একজন ব্যক্তি যখন তার জন্ম নিবন্ধন বাতিল করবেন।

তখন সেই ব্যক্তিকে ২০১৮ এর ধারা ১৫ অনুযায়ী নির্ধারিত ফি প্রদান করতে হবে। এবং উক্ত ফি এর পরিমান হলো, মাত্র ১০০ টাকা। 

প্রশ্ন পর্বঃ জন্ম নিবন্ধন বাতিল করার উপায়

Q: অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন কিভাবে করবো?

A: আপনি যদি অনলাইন থেকে জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে চান। তাহলে আপনি Bdris এর মূল ওয়েবসাইট থেকে জন্ম নিবন্ধন এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

Q: জন্ম সনদ বাতিলের জন্য আবেদন করার উপায়?

A: বিভিন্ন সময় আমাদের জন্ম সনদ বাতিল করার প্রয়োজন হয়। তো আপনি যদি আপনার জন্ম সনদ বাতিল করতে চান। তাহলে এখানে ক্লিক করে আপনার জন্ম সনদ বাতিল করার আবেদন করতে পারবেন।

Q: মৃত্যু সনদ বাতিলের জন্য আবেদন কিভাবে করবো?

A: আপনাদের যারা মৃত্যু সনদ বাতিল করবেন। তারাও একই পদ্ধতি অনুসরন করে মৃত্যু সনদ বাতিল করতে পারবেন।

আর সেজন্য আপনাকে এই লিংকে ক্লিক করতে হবে। তারপর আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য দেয়ার পরে মৃত্যু সনদ বাতিল করতে পারবেন।

Q: জন্ম নিবন্ধন ডুপ্লিকেট হলে করনীয় কি?

A: কোনো কারনে যদি আপনি একাধিক জন্ম নিবন্ধন করেন। তাহলে আপনাকে সেই ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করতে হবে। আর বর্তমানে আপনি অনলাইন থেকে আপনার জন্ম নিবন্ধন বাতিল আবেদন করতে পারবেন।

Q: জন্ম/মৃত্যু সনদ বাতিল/সংশোধনের আবেদনপত্র কোথায় করবো?

A: আপনি যদি কোনো জন্ম সনদ বা মৃত্যু সনদ এর তথ্য গুলো বাতিল কিংবা সংশোধন করতে চান। তাহলে আপনাকে বাংলাদেশ জন্ম ও মৃত্যু সনদ এর মূল ওয়েবসাইটে যেতে হবে।

তাহলে আপনি অনলাইন থেকে উক্ত কাজ গুলো করতে পারবেন। 

Q: জন্ম নিবন্ধন আবেদন যাচাই করার নিয়ম কি?

A: আপনি মাএ কয়েকটি ধাপ অনুসরন করে আপনার জন্ম নিবন্ধন আবেদন যাচাই করতে পারবেন। আর সেজন্য আপনাকে Bdris এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।

তারপর এখানে ক্লিক করে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন আবেদন যাচাই করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন নিয়ে আমাদের শেষকথা

আপনারা যারা একাধিক জন্ম নিবন্ধন করে ফেলছেন। তারা কিভাবে এই ডুপ্লিকেট জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন। সেই নিয়ম গুলো কে আজকে ধাপে ধাপে দেখিয়ে দিয়েছি।

তো আপনি যদি আজকের দেখানো নিয়ম গুলো ফলো করেন। তাহলে আপনি অনলাইন থেকে একাধিক জন্ম নিবন্ধন বাতিল করতে পারবেন।

আর আমরা প্রতিনিয়ত এই ধরনের অজানা বিষয় গুলো নিয়ে নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করি। যদি আপনি সেই অজানা বিষয় ‍গুলো বিনামূল্য পেতে চান।

তাহলে Bangla info Blog এর সাথে থাকবেন। আর ধন্যবাদ এতক্ষন ধরে আমার লেখা আর্টিকেল টি পড়ার জন্য।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top